তৃণমূলের সভার ভিড় না হওয়া এলেন না সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। জল্পনা তুঙ্গে

Partha Chatterjee & firhad-hakim
রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়েই তৃণমূলের জনসভায় পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিম
Partha Chatterjee & firhad-hakim
রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়েই তৃণমূলের জনসভায় পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিম

আজবাংলা যুব তৃণমূলের সভা থেকে শাসক দলের নেতারা যখন মুকুল রায়কে আক্রমণ করছেন, তখন সেখানে অনুপস্থিত রইলেন  অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়েই বিজেপি-র মঞ্চ থেকে গত শুক্রবার ফাইল দেখিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর ভাইপো অভিষেককে তোপ দেগেছিলেন মুকুল। তাঁর সে দিনের অভিযোগের জবাব দিতে দফায় দফায় মুখ খুলতে হয়েছে রাজ্য প্রশাসনের আমলা এবং তৃণমূল নেতাদের। অভিষেক এই সভায় হাজির হলে মুকুলকে ‘অতিরিক্ত গুরুত্ব’ দিয়ে ফেলা হতো বলেই মনে করছে শাসক শিবির। তাই সচেতন ভাবেই দূরে থেকেছেন যুব সভাপতি। তবে ‘বি‌শ্ববাংলা’ বিতর্কে মুকুলকে আইনি নোটিস পাঠানো হয়েছে তাঁর তরফে। উত্তর কলকাতা যুব তৃণমূলের আয়োজনে এ দিনের প্রতিবাদ-মঞ্চ থেকে মূলত উত্তর ২৪ পরগনার মন্ত্রী-বিধায়কদের দিয়েই মুকুলকে নিশানা করেছে তৃণমূল। মঞ্চে দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বা মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম থাকলেও মুকুল-বিরোধিতায় মুখ খুলেছেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিংহ, নৈহাটির বিধায়ক ও উত্তর ২৪ পরগনার যুব তৃণমূল সভাপতি পার্থ ভৌমিকেরা। কলকাতা ও সংলগ্ন জেলা থেকে লোক আনার কথা থাকলেও তৃণমূলের সভার ভিড় বিজেপি-র সভাকে টক্কর দিতে পারেনি বলে দলেরই একাংশের মত। সেকারনে অনুপস্থিত সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়